ইয়েমেন উপকূলে নৌকাডুবি! ৩৮ জনের মৃত্যু, নিখোঁজ ১০০!

হর্ন অফ আফ্রিকা থেকে যাত্রা শুরু । গন্তব্য ছিল ইয়েমেন । কিন্তু উপকূলে পৌঁছানোর মুখেই সাগরে নৌকাডুবি । প্রায় ৩৫ জনেরও বেশি শরণার্থীর মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে ।
সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, সোমবার ইয়েমেনের এডেন উপকূলে ঘটনাটি ঘটে । বরাত জোরে বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা উদ্ধারকারী দলের সদস্যদের জানান, নৌকাটিতে প্রায় ২৫০ জন আরোহী ছিলেন এদিন । আচমকা প্রবল ঝড়ের তোড়ে সেটি উল্টে যায় ।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, উদ্ধারকারী দল নিখোঁজ প্রায় ১০০ জনের সন্ধানে এডেন উপকূলে তল্লাশি চালাচ্ছেন । এডেনের পূর্ব দিকের রুদুম জেলার স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নৌকাটির যাত্রীরা সবাই শরণার্থী । তাঁদের বেশিরভাগই ইথিওপিয়া থেকে চলে আসা । মধ্যপ্রাচ্যের উপসাগরীয় দেশগুলোতে পৌঁছানোর জন্য, তাঁরা ইয়েমেনকে ট্রানজিট রুট হিসেবে ব্যবহার করে থাকেন ।

রুদুম জেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্তা হাদি আল-খুরমা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘নৌকাটি তীরে পৌঁছানোর আগেই উল্টে যা । মৎসজীবী এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের সহযোগিতায় সত্তরজনেরও বেশি মানুষকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে । উদ্ধার হওয়া যাত্রীরা জানিয়েছেন, তাঁদের সঙ্গে নৌকাটিতে থাকা আরও প্রায় শতাধিক শরণার্থী নিখোঁজ রয়েছেন । তল্লাশি ও উদ্ধারকাজ সমান্তরাল ভাবে চলছে । রাষ্ট্রসংঘকেও ঘটনাটির বিষয়ে জানানো হয়েছে’ ।

হর্ন অফ আফ্রিকা বা আফ্রিকার শিং নামে পরিচিত অঞ্চলটি জিবুতি, ইরিত্রিয়া, ইথিওপিয়া এবং সোমালিয়া নিয়ে গঠিত । রাষ্ট্রসংঘের তথ্য অনুযায়ী, গত বছর আফ্রিকার এই অঞ্চলটি থেকে প্রায ৯৭ হাজার শরণার্থী, সমুদ্র পেরিয়ে ইয়েমেনে এসে আশ্রয় নিয়েছেন ।
ইয়েমেনের যুদ্ধ এবং সম্প্রতি লোহিত সাগর ও তার সংলগ্ন জলপথগুলোতে বিভিন্ন জলযানে জলদস্যুদের লাগাতার হামলা সত্ত্বেও, সেদেশে আফ্রিকা থেকে আসা শরণার্থীদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে । অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের ইয়েমেনে আসার একমাত্র উপায় হল জলপথ । তাই একটি নৌকোয় যাত্রী সংখ্যাও থাকে অনেক বেশি । ফলে দুর্ঘটনাও ঘটে ।

নিউজ টাইম চ্যানেলের খবরটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।
Inform others ?
Share On Youtube
Show Buttons
Share On Youtube
Hide Buttons
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
Facebook
YouTube