প্রশাসনের নাকের ডগায় চলছে জলাশয় ভড়াটের কারবার!

প্রকাশ্যে প্রশাসনের নাকের ডগায় চলছে অবাধে জলাশয় ভড়াট । উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ শহর ও শহর লাগোয়া এলাকায় অস্তিত্ব হারাচ্ছে জলাভূমিগুলো । সব দেখেও প্রতিবাদ করতে সাহস হারান আম জনতা; একই সঙ্গে নিশ্চুপ প্রশাসনও ।

অহরহ চলছে এই জলাশয় ভড়াটের কারবার । ‘সাধারণ মানুষের থেকে খবর না পেলে কিছুই করার থাকে না’, এমনটা বলেই সাফাইটুকু সারছে প্রশাসন । নয়ানজুলি-জলাশয় বুজিয়ে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য বড়সড় বিপদ ঘনিয়ে আনছে এক শ্রেণী । এই নিয়েই আশঙ্কায় রয়েছেন পরিবেশবিদেরা ।

রায়গঞ্জ পুরসভা ও আশেপাশের এলাকায় যত জলাশয় বা নয়ানজুলি ছিল সেগুলোর বেশিরভাগই এখন জমি মাফিয়াদের দখলে চলে গিয়েছে । কোথাও প্রাচীর তুলে তো কোথাও আবার প্রকাশ্যেই মাটি ফেলে ভরাট করা হচ্ছে এই জলাশয়গুলি । তবে মোটেই রাতারাতি নয়, দিনের পর দিন ধরে চলছে এই কারবার । আর কংক্রিটের জঙ্গলে ক্রমশ ভরছে উঠছে গোটা শহর ।

দাবি উঠছে, এই চক্রের সঙ্গে জড়িতরা বেশিরভাগই প্রভাবশালী, সমাজের প্রতিষ্ঠিত বুদ্ধিজীবীও বটে । আর তাঁদের হাত ধরেই এই চক্র সক্রিয় বলে অভিযোগ আনা হচ্ছে । কিন্তু সব জেনে বা দেখেও একেবারে চুপ সাধারণ মানুষ । এই চক্রের পান্ডা কারা সবটাই এলাকার বাসিন্দারা অবগত আছেন । কিন্তু ক্যামেরার সামনে সবাই চুপ । কার্যত সমাজের প্রতিষ্ঠিত-র মুখোশধারী মাফিয়াদের আক্রোশের শিকার হতে হবে এই ভয়ে মুখ খুলছেন না কেউ । আর প্রশাসন বলছে, যে সব এলাকায় কারবার চলছে তা স্থানীয় বাসিন্দারা জানালেই তৎক্ষনাৎ ব্যবস্থা নেওয়া হয়। কেউ না জানালে কিভাবে জানবে প্রশাসন?

অন্যদিকে এই বিষয় নিয়ে রীতিমতো আশঙ্কা প্রকাশ করছেন পরিবেশবিদরা । এই জলাভুমিগুলো ভুগর্ভস্থ জল ধরে রাখার প্রধান আধার এবং এগুলো মাটির ফুসফুসের কাজ করে । তাই এই জলাভুমি ভরাট হয়ে গেলে আগামীতে বড় সমস্যায় পড়তে হবে বলে তাঁদের দাবি । পাশাপাশি সমাজকর্মীরাও এই বিষয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে এবং নিজেরাও এই বিষয়ে উদ্দ্যোগি হবেন বলে দাবি করেছেন । কিন্তু কতদিন চলবে এই কারবার? কবে আগামী প্রজন্মের বাসযোগ্য হবে শহর? সেই প্রশ্ন থাকছেই ।

নিউজ টাইম চ্যানেলের খবরটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।
Inform others ?
Share On Youtube
Show Buttons
Share On Youtube
Hide Buttons
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
Facebook
YouTube