শাসকদলের দুই গোষ্ঠীর দ্বন্দের জেরে এলাকায় চলল বোমাবাজি!

এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনার কোল্লা গ্রাম । মঙ্গলবার সাতসকালে গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায় বোমা । ফের প্রকাশ্যে আসে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর দ্বন্দ । ঘটনাস্থলে পৌঁছয় চন্দ্রকোনা থানার পুলিশ । সোমবার রাতে ফের একবার উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল কোল্লা গ্রাম ।

ঘটনা পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা ২ নম্বর ব্লকের ভগবন্তপুর ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের কোল্লা গ্রামের । পঞ্চায়েত নির্বাচন ও নির্বাচন পরবর্তী সময় থেকেই একাধিকবার উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এই কোল্লা গ্রাম । আর প্রতিবারই সামনে আসে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল । মূলত এলাকা দখলকে ঘিরে দুই গোষ্ঠীর কোন্দল অজানা নয় বলেই খবর । সোমবার রাতে ফের একবার উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কোল্লা গ্রাম । রাতে গ্রামে ব্যাপক বোমাবাজির ঘটনা ঘটে বলে জানা যায় । আর এই বোমাবাজির ঘটনায় ফের প্রকাশ্য আসে এলাকা দখলকে ঘিরে দুই গোষ্ঠীর কোন্দল ।

জানা যায়,পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠী বিভক্ত হয়ে যায় । একপক্ষ টিকিট না পাওয়ায় আম চিহ্নে নির্দল হয়ে দাঁড়িয়ে জয়লাভ করে। পরে তাঁদের দলেও ফিরিয়ে নেওয়া হয় বলেই খবর । অঞ্চল সহ সভাপতি ইসমাইল খাঁন ও অঞ্চল সভাপতি রামকৃষ্ণ রায়ের দ্বন্দ ব্লক থেকে জেলা নেতৃত্বের অজানা নেই ।

আম চিহ্নে জয়ী হয়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়া কোল্লার নেতাদের দাবি, ‘এলাকায় জলসা হচ্ছিল, তৃণমূলের বুথ সভাপতি জিয়াউর রহমানের অনুগামীরা বোমাবাজি করেছে আর এই জিয়াউর রহমান অঞ্চল সভাপতির অনুগামী বলে পরিচিত’ । অন্যদিকে বুথ তৃণমূলের সভাপতি জিয়াউর রহমানের অনুগামী কোল্লা বুথের যুব সভাপতি আব্বাসউদ্দিন খাঁন-এর দাবি, ‘ এলাকার রাশ নিজেদের হাতে রাখার জন্য আম চিহ্নে জয়ী হওয়া বর্তমানে তৃণমূল কর্মীরাই এলাকায় বোমাবাজি করেছে’ ।

তবে যাই হোক সাত সকালে এলাকায় বিভিন্ন জায়গায় বোমা ছড়িয়ে থাকার ঘটনায় আতঙ্কিত এলাকার মানুষজন । যদিও ব্লক তৃণমূল সভাপতি হীরালাল ঘোষ অবশ্য গোষ্ঠী কোন্দলের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন । পাশাপাশি তিনি জানান, পুলিশ প্রশাসন এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে ।

নিউজ টাইম চ্যানেলের খবরটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।
Inform others ?
Share On Youtube
Show Buttons
Share On Youtube
Hide Buttons
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
Facebook
YouTube