১লা জুন থেকে বাংলায় পুরোদমে খুলছে সরকারি-বেসরকারি অফিস, ধর্মস্থানও

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : করোনা ভাইরাসের  সংক্রমণ গোটা দেশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পশ্চিমবঙ্গেও  লাগাতার বেড়ে চলেছে। এই অবস্থায় রাজ্যের কোভিড- ১৯ সংক্রমণকে রুখতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার উপর ফের একবার জোর দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। করোনার বদলে মানুষের জীবন বদলে যাচ্ছে বলে মনে করছেন মুখ্যমন্ত্রী । করোনা ভাইরাসকে শতাব্দীর সবচেয়ে বড় বিপর্যয় বলে আখ্যা দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এই রোগ থেকে বাঁচতে সকলকে কড়া নিয়ম এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। অনেক জায়গাতেই মানুষ নিয়ম মানছেন না, তাই করোনা দ্রুত ছড়াচ্ছে। তাই ৬-৮ ফুট সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা আবশ্যিক। রাজ্যের সব মানুষকেই এটা মেনে চলতে হবে বলে কড়া ভাষায় জানান মুখ্যমন্ত্রী। সেই সঙ্গে মাস্ক স্যানিটাইজেশন এবং হাত ধোয়া আবশ্যিক বলে জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যাবতীয় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে ১ জুন সকাল ১০ টা থেকেই মন্দির মসজিদ গির্জা খোলার অনুমতি দেওয়া হবে বলে ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে একসঙ্গে ১০ জনের বেশি মানুষ সেখানে ঢুকতে পারবেন না। পাশাপাশি আগামী ১০ জুন থেকে রাজ্যের সমস্ত অফিস পুরোদমে খুলে যাবে বলেও ঘোষণা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

অফিস খোলা প্রসঙ্গে মুখ্য়মন্ত্রী জানান, ”আগামী ৮ জুন থেকে ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে সমস্ত অফিস খুলবে। তবে নিয়মকানুন মানতে হবে”। একইসঙ্গে চা বাগান ও জুট শিল্পেও ১০০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজে যোগ দেওয়া যাবে বলে এদিন জানিয়েছেন মমতা।

এদিকে করোনা সংক্রমণের মধ্যেই রাজ্যের বহু মানুষ আমফান ঘূর্ণিঝড়ের কারণে গৃহহারা হয়েছেন। তাই আপাতত রাজ্যের ৫ লক্ষ দুর্গত পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে সাহায্য করবে সরকার, পাশাপাশি ১০০ দিনের কাজের মাধ্যমে আরও ২৮ হাজার নিশ্চিত রোজগার পাবেন, এমনটাই বললেন মুখ্যমন্ত্রী। পরে আরও ৫ লক্ষ পরিবারকে ওই সাহায্য করা হবে রাজ্য সরকারের তরফে, এই আশ্বাসও দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

 

 

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons