নদীবাঁধে ফাটল! সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকা থকে সরানো হল ৬০ হাজার বাসিন্দাকে

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : ইতিমধ্যেই সুন্দরবনে নিজের তান্ডবলীলা দেখাতে শুরু করে দিয়েছে ঘূর্ণিঝড় আমফান। একাধিক নদীবাঁধে ফাটল ধরতে শুরু করেছে। পাথরপ্রতিমার এক স্থানে বাঁধ ভেঁঙে যাওয়ায় গ্রামে জল ঢুকতে শুরু করেছে। বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে প্রচির ক্ষয়ক্ষতিরও খবর মিলেছে। গাছ পড়ে বিদ্যুতের তার ছিড়ে যাওয়ায় বিদ্যুৎহীন বিস্তীর্ণ এলাকা। বহু এলাকা থেকে মানুষকে নিরাপদ স্থানে আগেই নিয়ে আসা হয়েছে। এখনও বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে কয়েক হাজার বাসিন্দাদের আনা হচ্ছে। গোসাবা ও কুলতলি থেকে ইতিমধ্যেই সরিয়ে আনা হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার বাসিন্দাকে। প্রতি মুহূর্তে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখছে প্রশাসন। রয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা দলও। 

সুন্দরবন ছাড়িয়ে ঘূর্ণিঝড় সাগরে ঢুকেছে বলে খবর মিলেছে। হাওয়া অফিস সুত্রের খবর, বিকেল ৪টে নাগাদ আলিপুরে ঢুকে পড়েছে আমফান। এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ওই এলাকায় ঝড়ের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১০৫ কিমি।

এই ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার কুলতলি, বাসন্তি , গোসাবা ব্লকের বিভিন্ন স্থানে নদী বাঁধে দেখা গিয়েছে ফাটল। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় গোসাবার ১৪টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা থেকে ৫০ হাজার এবং কুলতলি থেকে ১০ হাজার মানুষকে সরিয়ে আনা হয়েছে বলে জানিয়েছে প্রশাসন। 

 

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons