ঘণ্টায় ১৭০কিমি বেগে বইবে ঝড়, মন্দারমণিতে আছড়ে পড়বে ঘূর্ণিঝড় আমফান

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : করোনার ধাক্কায় এমনিতেই বেসামাল গোটা দেশ। তার উপর ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা। এবার পশ্চিমবঙ্গের  মানুষজনকে লড়তে হতে পারে ঘূর্ণিঝড় আমফানের  সঙ্গে। দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে যেভাবে গভীর নিম্নচাপ ঘনীভূত হয়েছে তাতে মনে করা হচ্ছে আগামী তিন-চার দিনের মধ্যে এটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপান্তরিত হতে পারে। আবহাওয়া দফতর আশঙ্কা প্রকাশ করেছে যে, দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে যে নিম্নচাপটি ঘনীভূত হয়েছে তা শনিবার বিকেলের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের  চেহারা নেবে। পূর্বাভাস অনুযায়ী, ঘূর্ণিঝড় আমফান নিজের শক্তি বাড়াবে মধ্য বঙ্গোপসাগরের কাছে। তারপর তা ক্রমশ স্থলভাগের দিকে এগোবে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ঘূর্ণিঝড়টি ওড়িশার দক্ষিণ ও অন্ধ্রপ্রদেশের উত্তর ভাগে আছড়ে পড়তে পারে। সেক্ষেত্রে এর প্রভাব পড়বে পশ্চিমবঙ্গের উপরেও।

আবহাওয়া দফতরের সাম্প্রতিক টুইট অনুযায়ী, ওই নিম্নচাপটি ওড়িশার পারাদ্বীপ থেকে প্রায় ১১০০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছে। দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগরের উপর ঘনীভূত হওয়া নিম্নচাপ ১০. ৪ ডিগ্রি অক্ষাংশ এবং  ৮৭.০ ডিগ্রি দ্রাঘিমাংশ থেকে ক্রমশই শক্তি বাড়িয়ে ওড়িশার দিকে এগোচ্ছে। শনিবার সন্ধে নাগাদ এটি আরও শক্তি বাড়িয়ে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে এবং আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সেটি একটি তীব্র ঘূর্ণিঝড়ের আকার নিয়ে আছড়ে পড়তে পারে।

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী ওড়িশা উপকূল জুড়ে এর জেরে ব্যাপক বৃষ্টিপাত হতে পারে। ওড়িশার ১২ টি উপকূলীয় জেলাকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে, সেখানকার উপকূলীয় অঞ্চল এবং আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের বিচ্ছিন্ন অঞ্চলগুলিতেও ভারী বর্ষণের সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। এর জেরে প্রভাবিত হতে পারে পশ্চিমবঙ্গও। এরাজ্যেও হয়ে পারে প্রবল ঝড়বৃষ্টি। আগামী ৫-৬ দিন উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরে হালকা থেকে মাঝারি, আবার কোথাও ভারী বর্ষণ হতে পারে। সঙ্গে উপকূলীয় অঞ্চল দিয়ে বয়ে যেতে পারে দমকা হাওয়া। আমফানের আশঙ্কায় তাই প্রহর গোণা শুরু হয়ে গেছে।

 

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons