কমলা বেচে স্কুল বানিয়ে পদ্মশ্রী জিতলেন হাজাব্বা

ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান পদ্মশ্রী পুরস্কারে ভ‚ষিত হয়েছেন হারেকালা হাজাব্বা নামে কর্নাটকের এক কমলা বিক্রেতা। খবরটি যখন জানলেন তখন তিনি দাঁড়িয়ে ছিলেন একটি রেশন দোকানের লাইনে। এনডিটিভি জানায়, ৬৮ বছর বয়সী হারেকালা তার কমলা বিক্রির স্বল্পআয় দিয়েই কর্নাটকের নিজ গ্রাম নিউপাদাপুতে একটি অস্থায়ী স্কুল গড়েছেন। ২০০০ সালে এই স্কুল খোলার আগে সেখানে কোনো স্কুলই ছিল না, জানায় বিবিসি। শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় একপর্যায়ে স্কুলের জন্য জমি কিনতে নিজের সঞ্চয়ের পাশাপাশি ঋণও নিয়েছিলেন স্বল্পআয়ের এই মানুষটি।

গত রবিবার এক টুইটার পোস্টে দেশটির বন কর্মকর্তা পারভীন কাসওয়ান জানান, ভারত সরকার যখন পদ্মশ্রী পুরস্কার জয়ী হিসেবে তার নাম ঘোষণা করছে, হারেকালা হাজাব্বা তখনও দাঁড়িয়ে এক রেশন দোকনের লাইনে। দক্ষিণ কন্নডের এ ফল বিক্রেতা গত এক দশক ধরে তার গ্রাম নিউপাদাপুরের একটি মসজিদে দরিদ্র শিশুদের শিক্ষার ব্যবস্থা করে আসছেন। সবই নিজের সঞ্চয় দিয়ে। পুরস্কার জয়ের পর দ্য নিউজ মিনিটকে হারেকালা জানান, বিদেশি এক দম্পতির কাছে ফল বিক্রি করতে ব্যর্থ হওয়ার পর তিনি তার গ্রামে স্কুল প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেন। ওই দম্পতি আমার কাছে কমলার দাম জিজ্ঞেস করেছিল। কিন্তু তখন আমি তা বুঝতে পারিনি। অনেক চেষ্টা করেছিলাম তাদের ভাষা বুঝতে, কিন্তু আমি টুলু ও বিহারি ভাষা ছাড়া কিছুই বলতে পারতাম না।

আমার খুব খারাপ লেগেছিল। আমার গ্রামের শিশুদের যেন কোনোদিন এমন পরিস্থিতিতে পড়তে না হয়, তাই ভেবেছিলাম। আমি বুঝতে পেরেছিলাম, যোগাযোগ কীভাবে একজনের জীবন এগিয়ে নিতে এবং মানুষকে কাছাকাছি আনতে সাহায্য করে। হারেকালা হাজাব্বার এ গল্প টুইটার ইউজারদের মন জয় করে নেয় বলে জানায় এনডিটিভি। তিনি সত্যিকারের একজন অনুপ্রেরণাদায়ী, প্রকৃত নায়ক এবং এ পুরস্কার পাওয়ার উপযুক্ত ব্যক্তি, কাসওয়ানের টুইটে মন্তব্য করেন এক নেটিজেন। হারেকালা হাজাব্বাকে তার এলাকার লোকজন আবেগভরে ‘অক্ষর সন্ত’ নামে ডাকে। পদ্মশ্রী জেতার পর সেই অক্ষর সন্তের আশা, সরকার এবার তার গ্রামে একটি কলেজ করে দেবে।

 

Some Useful links

Totam elit laboris? Eu donec consectetuer litora adipisci praesent convallis augue

Tags Cloud

Latest Posts

Categories

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons