রাজ্যের প্রথম করোনা বাহক সুস্থ- বলছে রিপোর্ট

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক :  

তাঁর উপর গোটা রাজ্য ক্ষিপ্ত।  তাঁর চরম দায়িত্বজ্ঞানহীনতার জেরে রাজ্যের প্রথম করোনা প্রবেশ করে। আক্রান্ত তরুণ ও তাঁর প্রভাবশালী বাবা-মা, তাতে করোনা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা ছিলই। তবে, এই পরিস্থিতিতে রবিরার মিলল সুখবর।

 বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের ডাক্তারদের চিকিৎসায় সেরে উঠছেন সেই আক্রান্ত তরুণ। ১৭ মার্চ করোনা ধরা পড়ে তাঁর। এরপর তাঁর চিকিৎসা চলছিল বেলেঘাটা আইডি’তে। সেই চিকিৎসার পর গত শনিবার তাঁর সোয়াব নমুনা পাঠানো হয়েছিল নাইসেডে। সেই রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

তবে, একটা রিপোর্টেই থেমে থাকবেন না চিকিৎসকরা। বারবার টেস্ট করানো হবে। রবিবার তাঁর নমুনা পাঠানো হবে নাইসেডে। সেই রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও নিয়ম মাফিক তারপর তাঁকে হাসপাতালেই ১৪ দিন কোয়ারানটিনে থাকতে হবে। তারপর তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছাড়া হবে। তবে, এই গোটা ঘটনায় রাজ্যের ডাক্তারদের সাফল্য প্রশংসনীয়।

আমলা পুত্র হওয়ার জন্য কোনো আলাদা সুবিধে নয়, করোনার সংক্রমণের উপসর্গ দেখা গেলে নিয়ম মেনে যা যা করা দরকার, তা-ই করতে হবে বলে স্পষ্ট জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যেপাধ্যায়। রাজ্য সরকারের ওই আমলার পুত্র ইংল্যান্ড থেকে ফিরেও বেলেঘাটা আইডিতে গিয়ে পরীক্ষা করাননি। বরং তিনি শহরের একাধিক জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছেন। এই ঘটনা ক্ষুব্ধ হন  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । যাঁর মা আমলা এবং বাবা চিকিৎসক-সেই পরিবার এমন একটি কাজ করল কী করে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন সকলেই।

ওই আমলা-পুত্রের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট ১৭ মার্চ পজিটিভ এসেছিল। তারপর থেকে তিনি বেলেঘাটা আইডিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সপরিবার এই আমলাকে কোয়ারানটিনে যেতে বলা হয়েছিল। তাঁদের গাড়ির চালকও কোয়ারানটিনে। আপাতত ডাক্তারদের সাহায্যে করোনা মুক্তির যে পথ দেখা যাচ্ছে, তাতে খুশি রাজ্যবাসী।

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons