সিএএ প্রতিবাদে উত্তাল শিলং, বন্ধ ইন্টারনেট

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : সিএএ বিক্ষোভের আগুন মেঘালয়ের রাজধানী শিলং। উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ওই রাজ্যে বাংলাদেশ-সীমান্তবর্তী এক তল্লাটে এখনও পর্যন্ত সিএএ-র প্রতিবাদী, খাসি স্টুডেন্টস ইউনিয়নের (কেএসইউ) এক সদস্য-সহ দু’জন নিহত এবং কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। সিএএ-র বিরুদ্ধে ওই ছাত্র সংগঠনের একটি প্রচারসভার উপর শুক্রবার প্রথমে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে অনাদিবাসীদের একটি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে। তার পর দু’পক্ষের সংঘর্ষ শুরু হয়। মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে রাজ্যে।

ঘটনাস্থল পূর্ব খাসি পাহাড় জেলার শেলা বিধানসভা এলাকার ইছামতী গ্রামের অবস্থান রাজ্যের রাজধানী শিলং থেকে ৯০ কিলোমিটার দূরে। ঘটনার পর, শুক্রবার রাত থেকে কার্ফু জারি করা হয়েছে গোটা শেলায় এবং শিলংয়ের কিছু এলাকায়। শনিবার সকাল ৮টার পর কয়েক ঘণ্টার জন্য কার্ফু শিথিল করা হয়েছিল। কিন্তু শান্তিশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে বলে আশঙ্কা করে কার্ফু নতুন করে বলবৎ করা হয়েছে। শুক্রবার রাত ১০টা থেকে ৪৮ ঘণ্টার জন্য শেলায় মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ ও এসএমএসের পরিষেবা নিয়ন্ত্রণ করেছে প্রশাসন। আপাতত দিনে পাঁচটির বেশি এসএমএস করা যাবে না।

হামলায় জখম ছ’জনের মধ্যে এক জনের দেহে ছোরার আঘাত রয়েছে। সিএএ-বিরোধীদের পাশাপাশি জখম হয়েছেন কয়েক জন পুলিশকর্মীও। বেশ কয়েকটি বাস-সহ যানবাহনে ভাঙচুর চালানো হয়, আগুন ঘরিয়ে দেওয়া হয় একটি বাড়িতে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী ওই তল্লাটে উত্তেজনা চরমে উঠেছে।
 সূত্রের খবর কেএসইউয়ের নিহত সদস্যের নাম লুরশাই হাইনিউতা। খাসি জনজাতির ওই তরুণ চেরাপুঞ্জির বাসিন্দা। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানে তিনি মারা যান। নিহত আর এক জনের পরিচয় শনিবার রাত পর্যন্ত জানা যায়নি। তবে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে, জখম ছ’জনের মধ্যে এক জন শনিবার  মারা গিয়েছেন।

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons