ফের বেসুরো রাজ্যপাল, সিএএ-এনআরসি’র খরচ নিয়ে প্রশ্নের মুখে রাজ্য

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : সিএএ, এনআরসি ও এনপিআর-এর বিরোধিতা করে বিজ্ঞাপন বাবদ এখনও প‌র্যন্ত ঠিক কত টাকা খরচ করেছে রাজ্য সরকার, তা জানতে চেয়ে রাজভবনের তরফে একটি চিঠি পাঠানো হল নবান্নে। এবিষয়ে রাজ্যের কাছে বিস্তারিত জানতে চেয়েছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়।

সংশোধনা নাগরিকত্ব আইন পাশ হওয়ার পর থেকেই রাজ্য সরকারের তরফে তার ঘোর বিরোধীতা করা হয়। এমনকি বিরোধিতামূলক বহু বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় মমতা সরকারের তরফে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন বাংলায় কোন ভাবেই সিএএ ও এনআরসি কা‌র্যকর করা হবেনা। কিন্তু সেই বিজ্ঞাপন প্রত্যাহার করার পরামর্শ দেন জগদীপ ধনকড়। তাঁর কথায়, ‘একজন নির্বাচিত সরকারের প্রধান হিসেবে সরকারের টাকায় এই ধরনের বিজ্ঞাপন দেওয়া উচিত নয়। রাজনৈতিক দল এভাবে বিরোধিতা করতে পারে কিন্তু সরকারে থেকে এ পদ্ধতি অবলম্বন করা যায় না। এটা একটা অসুস্থ ধারণার পরিচয়।’

সিএএ ও এনআরসি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর অবস্থান নিয়ে প্রথম থেকেই চটে ছিলেন রাজ্যপাল। এমনকি এবিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী পদক্ষেপকেও অসাংবিধানিক  বলে উল্লেখ করেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করে রাজ্যপাল আগে বলেন, ‘‘সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং দেশের আইন-কানুনের বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যের মন্ত্রীদের সমাবেশে আমি উদ্বিগ্ন। এটা একেবারে অসাংবিধানিক। মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আমার আর্জি, এই মুহূর্তে রাজ্যের যা পরিস্থিতি, তাতে এমন অসাংবিধানিক এবং উস্কানিমূলক পদক্ষেপ করবেন না। তার চেয়ে এই পরিস্থিতি থেকে কীভাবে বেরিয়ে আসা যায়, সে দিকে মন দিন।’’

সুত্রের খবর, রাজভবন থেকে তথ্য-সংস্কৃতি দফতরের প্রধান সচিবকে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে। ‌যেখানে বলা হয়েছে, সিএএ, এনআরসি, এনপিআরের বিরুদ্ধে প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপন বাবদ ঠিক কত টাকা রাজ্য সরকারের খরচা হয়েছে তা ‌যেন খুব শীঘ্রই জানানো হয়।  

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons