কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ধেয়ে আসছে নিসর্গ, জরুরি বৈঠকে বসছেন অমিত শাহ

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : করোনার মধ্য়ে এক এক করে প্রাকিতিক বিপর্যয়ে সংকটের মুখে পড়ছে দেশবাসী। একইসাথে চিন্তায় মাথায় হাত পড়েছে দেশের প্রশাসনের। ইতিমধ্যেই বাংলায় আমফানের ক্ষত দগদগে। সেই ক্ষত সারাতে দিনরাত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে রাজ্য সরকার। ইতিমধ্য়েই বাংলায় আমফানের ক্ষয়ক্ষতি বিবেচনা করে ১০০০ কোটি টাকা আর্থিক সাহায্য দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এরইমধ্যে ফেল নতুন করে আরব সাগরে শক্তি বাড়াচ্ছে ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ। সেই ঘূর্ণিঝড়ের কবল থেকে যদিও রেহাই পাবে বাংলা। তবে দেশের অপর প্রান্তে তথা মহারাষ্ট্র ও গুজরাটে আছড়ে পড়বে এই ঝড়। আগামী কয়েক ঘন্টার মধ্য়েই এই ঘূর্ণিঝড়ের ফলে  পশ্চিম উপকূলে ব্যপক দুর্যোগের সম্ভাবনা রয়েছে।

তাই আগাম সতর্কতার জন্য ন্যাশনাল ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

মৌসম ভবন সুত্রের খবর, আরব সাগরে জোড়া ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছে। যার জেরে পশ্চিম উপকূলবর্তী এলাকায় ব্যপক দুর্যোগ দেখা দিতে পারে। যদিও দুটি ঘূর্ণাবর্তের মধ্য়ে একটির অভিমুখ বদল করার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে অপরটি মহারাষ্ট্র ও গুজরাটের উপকূলীয় অঞ্চলে আছড়ে পড়তে পারে বুধবারের মধ্য়ে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, দক্ষিণ-পূর্ব ও পূর্ব মধ্য আরব সাগরে ক্রমশ ঘনীভূত হচ্ছে নিম্নচাপ। মঙ্গলবারের মধ্যেই তা ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। বর্তমানে এটি নিম্নচাপ রূপে অবস্থান করেছে। কিন্তু আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যেই সেটি ঘূর্ণিঝড়ের আকার নেবে।

মঙ্গলবার এই নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার পর ধীরে ধীরে তা উত্তর ও উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হবে। এরপর ক্রমেই ওই ঘূর্ণিঝড় শক্তি সঞ্চয় করে  বুধবার সন্ধ্যার দিকে আঁছড়ে পড়বে গুজরাট ও মহারাষ্ট্র উপকূলে। এই ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১০৫ থেকে ১২৫ কিলোমিটার। এই ঘূর্ণিঝড়ের জেরে আগামী ২ থেকে ৪ জুন প্রবল বৃষ্টি হবে মহারাষ্ট্রের দক্ষিণ উপকূলে। এছাড়া এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে গুজরাট, দিউ ও দমনে ৩ থেকে ৫ জুন দুর্যোগ চলবে। এছাড়াও  মুম্বই, থানে, রায়গড়, পালঘর, ভাপি, ভালসাদ, সুরাত, দিউ-দমন সহ একাধিক জায়গাতেও এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব থাকবে।

 

 

Inform others ?

হয়তো আপনার চোখ এড়িয়ে গেছে !

Show Buttons
Hide Buttons