লাদাখে তৎপরতা চিনের! দোভাল-রাওয়াতের সঙ্গে জরুরি বৈঠক সারেলন মোদী

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : চিন সীমান্তের পরিস্থিতি যে বেশ সংকটজনক তা আর আলাদাভাবে বলার কোন প্রয়োজন নেই। মঙ্গলবার দিল্লিতে একাধিক দফার বৈঠকের পরেই তা অনেকখানি স্পষ্ট। করোনা আবহের মধ্য়েই লাদাখে চিনের এই  তৎপরতা অনেকখানি উদ্বেগের কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যম সুত্রে জানা গিয়েছিল, ভারতীয় জওয়ানদের সাথে চিনের সেনাদের একটি সংঘাতের সৃষ্টি হয়। পাসাপাশি বেশ কয়েকজন ভারতীয় জওয়ানকে আটকে রাখার খবরও প্রকাশ্যে আসে। যদিও এই খবর সত্য নয় বলেই দাবি করা হয় সেনার তরফে। তবে ঘটনা যাই, বর্তমানে লাদাখ নিয়ে যে একটা উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা প্রায় সকলেরই জানা। লাদাখের পরিস্থিতি নিয়ে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালোর সঙ্গে মঙ্গলবার বিকেলে এক বৈঠকে বসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তবে তার আগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকে বিশেষ বৈঠক হয়। সেখানে স্থলসেনা, নৌবাহিনী ও বায়ুসেনা একসাথে তাঁদের রিপোর্ট পেশ করে। 

জানা গিয়েছে, লাদাখের পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে তা মোকাবিলা করার জন্য এই তিন  বাহিনীর তরফে একটি  ইনপুট তৈরি করা হয়েছে। সেবিষয়েই মঙ্গলবার সকালে বৈঠক হয় সাউথ ব্লকে। এদিনের বৈঠকে উপস্থিত থাকতে দেখা যায় চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াতকে। বৈঠক শেষে তিনিও প্রধানমন্ত্রার কাছে রিপোর্ট পেশ করেন। বর্তমান পরিস্থিতি অনুসারে সেখানে কী হতে পারে আর কী হতে পারে না সেবিষয়ে ছাড়াও বেশ কিছু ব্যবস্থা গ্রহন করার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে রিপোর্টে। 

দিন কয়েক ধরেই লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের কাছে মুখোমুখি দাঁড়িয়ে রয়েছে ভারত-চিন সেনা। প্যাংগং তোসো লেক ও গালোয়ান ভ্যালির কাছে সম্ভবত এই ঘটনা ঘটেছে। এবিষয়ে প্রাক্তন আর্মি কমান্ডার লেফট্যানেন্ট জেনারেল ডিএস হুদা বলেন, “এটা মোটেই স্বাভাবিক ঘটনা নয়। বিশেষ গালোয়ান ভ্যালিতে এভাবে চিনা সৈন্যের আনাগোনা বেশ উদ্বেগের কারণ ওই অঞ্চল নিয়ে দুই দেশের মধ্যে কোনও বিতর্ক নেই। অথচ সেখানেই সৈন্য মোতায়েন করেছে চিন।”

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons