গর্ভবতী মহিলা ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অফিসে যোগদানের ক্ষেত্রে মিলবে ছাড়ঃ কেন্দ্র

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : করোনার জেরে গত ২৫ মার্চ থেকে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। তখন থেকেই জরুরি পণ্য ও পরিষেবা ছাড়া বন্ধ রয়েছে প্রায় সবকিছুই। কিন্তু দিনের পর দিন লকডাউন বেড়ে যাওয়ার ফলে সংকটের মুখে পড়ছে দেশের অর্থনীতি। তাই দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে গত ১৮ মে থেকে চতুর্থ দফায় লকডাউন শুরুর পর বেশ কিছু ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়ার কথা জানানো হয়েছে কেন্দ্র সরকারের তরফে। ইতিমধ্যেই কেন্দ্র সরকারের বিভিন্ন বিভাগে ৫০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ শুরু করার নিদান দিয়েছে কেন্দ্র। সেই মর্মে মঙ্গলবার কর্মচারী মন্ত্রকের তরফে জানিয়ে দেওয়া হল, কোভিড-১৯ মহামারীর প্রেক্ষিতে ৫০ শতাংশ কর্মীদের নিয়ে কাজ শুরু হলেও গর্ভবতী মহিলা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি এবং যে সমস্ত কর্মীদের কমোরিবিডিটিস রয়েছে তাঁদের কোন ভাবেই কাজে নিযুক্ত করা যাবেনা।

করোনা মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে গিয়েও কেন্দ্রের তরফে ৫০ শতাংশ স্বল্প বয়সা কর্মী নিয়ে কাজ শুরু করার কথা ঘোষণা করার পরেই সরকারের তরফে এই নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে। এই নির্দেশিকায় জানানো হয়, লকডাউনের জেরে কাজ বন্ধ হওয়া পূর্বেই উল্লিখিত শর্তের আওতাভুক্ত (কমোরিবিডিটিস) যাঁরা ছিলেন, তাঁরা তাঁদের মেডিক্যাল প্রেসক্রিপশন জমা দিলেই কাজ থেকে অব্যাহতি পেতে পারেন। “একইসাথে গর্ভবতী মহিলা ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদেরও কাজের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা যাবেনা।” কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন বিভাগেই এই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সোমবার মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, উপসচিব স্তরের নিচে যে সমস্ত জুনিয়র কর্মচারিরা রয়েছেন, তাঁদের ৫০ শতাংশকে নিয়ে অফিসের কাজ শুরু হবে। 

কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের উপস্থিতির বিষয়টি নিয়ন্ত্রন করার স্বার্থে সমস্ত বিভাগীয় প্রধানদের একটি রস্টার (কাজের তালিকা) তৈরি করতে বলা হয়েছে, যার মাধ্যমে ওই ৫০ শতাংশ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা বিকল্প দিনগুলিতে অফিসে উফস্থিত থাকছেন কিনা তা নিশ্চিত করা যায়। তবে যাঁরা উপসচিব স্তরে রয়েছেন তাঁদের প্রতিটি কাজের দিনেই অফিসে উপস্থিত থাকবে হবে। এছাড়া যে ৫০ শতাংশ কর্মী কাজে নিযুক্ত হচ্ছেন তাঁদের সবকিছু দেখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে প্রত্যেক বিভাগীয় প্রধানকে।

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons