‘লকডাউন তুললেই প্রয়োজন চূড়ান্ত নজরদারির’, সতর্কতা হু-এর

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : শুধু লকডাউন নয়, ভ্যাকসিন আবিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত বিশ্বকে করোনা মুক্ত করা সম্ভব নয়। এমনটাই দাবি করা হয়েছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা হু-এর তরফে। তবে লকডাউন শিথিল করলে যে পরিণতি আরও খারাপ হবে এদিন সেবিষয়েই নতুন করে হুঁশিয়ারি দিল হু। একইসাথে লকডাউন তুলতে হলে চূড়ান্ত নজরদারির প্রয়োজন বলেও জানানো হয়েছে।

বর্তমানে তৃতীয় দফায় লকডাউন চলছে ভারতে। সোমবার বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে লকডাউনের ভবিষ্যত নিয়ে আলোচনার স্বার্থে বৈঠকেও বসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার পরেই ভারতে লকডাউন শিথিল প্রসঙ্গে এই বিশেষ সতর্কবার্তা দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তাঁদের কথায়, লকডাউন শিথিল করার পর চূড়ান্ত নজরদারি না থাকলে নতুন করে ফের করোনার সংক্রমণ ঘটতে পারে। এবিষয়ে চিন, জার্মানি, দক্ষিণ কোরিয়ার উদাহরনও টানে হু। 

জার্মান ইতিমধ্য়েই করোনার প্রকোপ থেকে অনেকখানি মুক্ত। তাই সেদেশে লকডাউন শিথিল করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে প্রশাসনের তরফে। খানিকটা একইরকম চিত্র ধরা পড়েছে দক্ষিণ কোরিয়াতেও। সেখানেও করোনা ভাইরাসের প্রভাব অনেকখানি কমেছে। তাই সেদেশেও লকডাউন তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু সংক্রমণ কমে গেলেও লকডাউন তোলা হলেই ফের নতুন করে শুরু হচ্ছে করোনার দাপট। সেপ্রসঙ্গেই এদিন দেশগুলিকে সতর্ক করেন হু কর্তা মাইক রায়ান। তিনি বলেন, করোনার প্রভাব কমলে লকডাউন তোলা যেতে পারে। তবে সেক্ষেত্রে ‘চূড়ান্ত নজরদারি’র প্রয়োজন। কারন এই মারণ ভাইরাসের প্রভাব কমলেও সংক্রমণের ঝুঁকি একেবারেই কম হবেনা। একইসাথে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন, “যতদিন না কোনও কার্যকরী প্রতিষেধক তৈরি হচ্ছে, ততদিন আমাদের নিয়ন্ত্রিতভাবেই এই ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে হবে।”

লকডাউন শিথিল প্রসঙ্গে এদিন  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিরেক্টর-জেনারেল টেড্রোস আধানম ঘেব্রিয়েসুস বলেন, “মানুষের প্রাণ বাঁচানোর জন্য খুব ধীরে ধীরে তুলতে হবে লকডাউন। কড়া নজর রাখতে হবে ঘটনাক্রমের উপর। তাড়াহুড়ো করে লকডাউন তুললে বিপদ ফের বাড়তে পারে।”

 

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons