একমাসের মধ্যেই করোনার ভ্যাকসিন?

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : ভারতের শীর্ষ গবেষণা এবং উন্নয়ন সংস্থা, কাউন্সিল অফ সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ (সিএসআইআর), বর্তমানে কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য একটি ভ্যাকসিনের সন্ধান পেয়েছেন। মহামার রুখতে এর ব্যাপক ব্যবহারের জন্য ড্রাগ নিয়ামকের কাছ থেকে অনুমোদনের অপেক্ষা করছে। যা মিলতে পারে আগামী ৩০ দিনের মধ্যেই।শনিবার এক বিজ্ঞানী বলেছেন।

সিএসআইআর বর্তমানে কোভিড-১৯ নিরাময়ে ক্যাডিলা ফার্মাসিউটিক্যালসের “সেপসিভ্যাক” ওষুধটির ওপর পরীক্ষা নিরীক্ষা করছে। এই ওষুধ বেশ কয়েক বছর আগে সিএসআইআর এবং ক্যাডিলা ফার্মাসিউটিক্যালসের সহযোগিতায় তৈরী হয়েছিল।
এটি একটি ইমিউনোথেরাপি, যা শরীরে “সহজাত ইমিউনিটি” বৃদ্ধি করে।
প্রথমে ভারতের ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই) নেগেটিভ সেপসিসের জন্য এই ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দিয়েছিল। এটি ব্যাকটিরিয়া দ্বারা সৃষ্ট একটি রোগের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হত।

এই দুই রোগের পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায় দুটি রোগেরই প্যাথলজিকাল লক্ষণ একরকম। বিশ্বজুড়ে দ্রুত বৃদ্ধি পাওয়া কোভিড -১৯ সমাধানের সন্ধানের তাগিদে এই ভ্যাকসিনের সাহায্যেই বিজ্ঞানীরা সারস-কোভি -২ ভাইরাসের দ্বারা সৃষ্ট বর্তমান মহামারীর বিরুদ্ধে চিকিৎসা করার পরিকল্পনা করেছেন।

সিএসআইআর প্রায় ১০ দিন আগে ফিজ ২-এর একটি ক্লিনিকাল পরীক্ষায় কোভিড -১৯-এর বিরুদ্ধে “সেপসিভ্যাক” পরীক্ষা করার অনুমোদন পেয়েছিল। দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেস (এআইএমএস), এআইএমএস ভোপাল এবং চন্ডীগড়ের স্নাতকোত্তর ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ (পিজিআইএমআইআর) এ ৫০ জন রোগীর উপর এই পরীক্ষা করা হচ্ছে।
জম্মু, ইন্টিগ্রেটিভ মেডিসিন (কাউন্সিল অফ সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ) এর পরিচালক রাম বিশ্বকর্মা জানিয়েছেন, “আমরা এখন থেকে ৩০-৪৫ দিনের মধ্যে এর ফলাফল প্রত্যাশা করছি। এবং যদি ফলাফল ভালো হয় তবে আমরা জরুরি কারণে প্রশাসনের থেকে এর অনুমোদন নেব এবং তৃতীয় পর্যায়ের বিচার শুরু করফ।

সুতরাং দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়ালটিতেই দেখা যাবে যে “সেপসিভ্যাক” কোভিড -১৯ নিরাময়ে কার্যকরী কিনা।

অপরদিকে, বিশ্বকর্মা জানিয়েছেন,সিভিয়ার কোভিড -১৯-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য “সেপসিভ্যাক” এর তিন ধাপের ক্লিনিকাল ট্রায়াল করার অনুমোদন পেয়েছেন তাঁরা।

বিশ্বকর্মা আর ও জানান, “তিন ধাপের এই পরীক্ষা ১,১০০ জনের উপর করা হবে – এর মধ্যে ৬০০ জন যাদের রিপোর্ট পজিটিভ কিন্তু লক্ষণ নেই এবং ৫00 জন হ’ল যারা হাসপাতালের বাইরে আছেন।
সেপসিভ্যাক কীভাবে কাজ করে?

এটি একটি তাপ-নিহিত মাইকোব্যাকটেরিয়াম ডাব্লু (এমডাব্লু) যাতে ইমিউনোমোডুলেটর রয়েছে, এবং একটি অ-প্যাথোজেনিক মাইকোব্যাকটেরিয়াম।

তিনি বলেন, “আমরা কোভিড -১৯ এর চিকিৎসার জন্য যে পরীক্ষা নিরীক্ষা করছি তা জন্মগত অনাক্রম্যতা বাড়ানোর জন্য।

বিশ্বকর্মা ব্যাখ্যা করেছেন যে এটি একটি অ-নির্দিষ্ট টিকা যা মানুষের নিরাময়ে ও সুরক্ষা উভয়ের জন্যই ব্যবহৃত হতে পারে। সাধারণত তিন ধরণের ভ্যাকসিন রয়েছে বলে তিনি জানান।

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons