সন্তান প্রসবের আগেই দেশবাসীকে করোনা টেস্টিং কিট উপহার এই মহিলা ভাইরোলজিস্ট

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। কিন্তু আমাদের দেশের যা জনসংখ্যা তাতে, ‘মাস টেস্টিং’ প্রায় অনেক ক্ষেত্রেই অসম্ভব বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। করোনা উপসর্গ নিয়ে অনেকে হাসপাতালে টেস্টের জন্য এলেও, কিটের অভাবে পরীক্ষা করা সম্ভব হচ্ছেনা অনেক ক্ষেত্রে। যার জেরে ইতিমধ্য়েই দুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে দেশীয় কিট বানিয়ে দেশবাসীকে স্বস্তি দিলেন মিনাল দাখাভে ভোঁসলে। 

মহারাষ্ট্রের পুনের মাইল্যাব ডিসকভারির গবেষণা ও উন্নয়ন প্রধান মিনাল। বর্তমানে দেশের জন্য করোনা টেস্টিং কিট বানানো খুবই প্রয়োজনীয় কাজের মধ্যে একটি। আর সেই কাজটি করায় নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন মিনাল। একদিকে  অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় নিজের শারীরিক অবস্থাও ভালো নেই, অন্যদিকে দেশবাসীর জীবন-মরণের লড়াই। তাই নিজের শারীরিক অবস্থার কথা চিন্তা না করেই কিট নিয়ে এক নাগাড়ে পরীক্ষা চালিয়ে যান তিনি। তার তৈরি এর কিট ন্যাশনাল ইন্সটিউট অব ভাইরোলজির (এনআইভি) গুণমানের মাপকাঠিতে শতভাগ নির্ভুল বলে বিবেচিত হয়েছে। 

মিনাল দাখাভে ভোঁসলে নিজে একজন ভাইরোলজিস্ট। ভাইরাস নিয়ে কাজ করেন তিনি। বৃহস্পতিবার ভারতীয় প্রতিষ্ঠান মাইল্যাব করোনা ভাইরাস পরীক্ষার কিট বাজারজাত করে। পুনে, দিল্লি, মুম্বই, গোয়া ও বেঙ্গালুরুতে মোট ১৫০ টি কিট পাঠানো হয়েছে এই প্রতিষ্ঠান থেকে। আর সেই খবর হাসাপাতালের বেডে শুয়েই পেয়েছেন মিনাল। এই সাফল্যের পাশাপাশি এক কন্যা সন্তানেরও জন্ম দেন তিনি। 

ফেব্রুয়ারির শেষে শরীরিক ভাবে অসুস্থ হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি হন মিনাল। কিন্তু দেশের সংকটের দ্কটি বিবেচনা করেই ফের কিট তৈরির কাজে গবেষনা শুরু করেন তিনি। হাসপাতাল থেকেই এই গবেষনার কাজ চালিয়ে যান মিনাল। অবশেষে ১৮ মার্চ তাঁরা চূড়ান্ত গবেষণা রিপোর্ট ও কিট জমা দেন। পরের তিন তথা ১৯ মার্চ কন্যা সন্তানের জন্ম দেন তিনি। কিট তৈরিতে তাঁর এই সাফল্যে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন দেশবাসী।

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons