কাটছে বন্দিদশা, সাত মাস পর মুক্তি ওমর আবদুল্লার

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক :

৫ আগস্ট থেকে বন্দিদশা কাটাচ্ছেন তিনি। অবশেষে সাত মাস পর মুক্তি পেতে চলেছেন ওমর আবদুল্লা। এই বন্দি জীবন থেকে বেরিয়ে তিনি এবার কেন্দ্রশাসিত জম্মু-কাশ্মীরে অবাধে ভ্রমন করতে পারবেন। 
 
৫ আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ হওয়ার পর সেখানকার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা সহ সেখানকার আরও বেশ কিছু রাজনৈতিক নেতাদের আটক বা গৃহবন্দি করা হয়েছিল। দাবি করা হয়েছিল এই রাজনৈতিক নেতারা যেকোন সময় ৩৭০-এর বিশেষাধিকার প্রত্যাহার করার প্রতিবাদে শামিল হতে পারেন। তবে বিশেষ করে ন্যাশনাল কনফারেন্সের নেতা ওমর আবদুল্লার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়, তিনি যে কোন প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়েই জনসাধারণকে প্রভাবিত করার ক্ষমতা রাখেন।
 
২০১৯-এর ৫ অগস্ট থেকে শুরু করে ১০ মার্চ এই সাত মাসে বিনা আইনেই আটকে রাখা হয়েছিল ওমর আবদুল্লাকে। এরপর জন নিরাপত্তা আইনে তাঁর বিরুদ্ধে চার্জ করা হয়। বন্দিদশা থাকে সম্প্রতি মুক্তি পান ফারুক আবদুল্লা। দাদার মুক্তির দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে যান ওমরের বোন। এরপর শীর্ষ আদালতের তরফে কেন্দ্রের কাছে জবাব চাওয়া হয়। এরপরেই ওমর আবদুল্লাকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্র।
একইসাথে “জঙ্গিবাদ এবং ভোট বয়কট চলাকালীন সমর্থন সংগ্রহের চেষ্টা”র অভিযোগ ছিল প্রাক্তন এই মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। ওমরকে আকট করে রাখার পেছনে কেন্দ্রর যুক্তি ছিল, জঙ্গিবাদের কারণে যখন ভোট বয়কট করা হয়েছিল, তখন তিনি ভোটারদের ঘর থেকে বের করে এনে ভোট দিতে উৎসাহিত করেছিলেন। সুতরাং বলা যায় তিনি যে কোন পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েই মমানুষকে প্রভাবিত করতে পারেন।  তবে তাঁর দাদাকে গ্রেফতার করার বিষয়টি যে সংবিধানকে লঙ্ঘন করছে তা সুপ্রিম কোর্টের কাছে দাবি করেন ওমর আবদুল্লার বোন সারা পাইলট। 
 
 
 
 
Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons