হাতে আর সময় নেই, হাসপাতালের বেডে শুয়েই কন্যাদান বাবার

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : হাসপাতালে মৃত্যুর প্রহর গুনছেন বাবা। তবুও শেষ ইচ্ছা মেয়ের বিয়ে দেখবেন। আর মাত্র চারটে দিন, তারপরেই মেয়ের বিয়ে। কিন্তু বাবার হাতে আর একেবারেই সময় নেই। তাই মৃত্যু পথ‌যাত্রী মুমূর্ষু বাবার চোখের সামনে মেয়ের বিয়ে দেওয়ার জন্য সহযোগিতার হাত  বাড়িয়ে দিল হাওড়ার নারায়ণা সুপার-স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।   

ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীর শেষ ইচ্ছাকে সম্মান দিতে গিয়ে এদিন নারায়না সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে তাঁর বেডের সামনেই আইনগত ভাবে বিয়ে হয় মেয়ের। তবে শুধু আইনি বিবাহই নয়, আর পাঁচটা সাধারণ বিয়ের মতোই হাসপাতালেই বসল বিয়ের আসর।

সন্দীপ সরকার নামে ক্যান্সার আক্রান্ত ওই ব্যক্তি উত্তর ২৪ পরগনার বরাহনগরের বাসিন্দা। ক্যানসারের ফোর স্টেজে রয়েছেন বছর ৬১-র ওই ব্যক্তি। ২০১১ সাল থেকে ক্যান্সারের সাথে ‌যুদ্ধ করছেন তিনি। তিনি প্রথমে জিভের ক্যানসারে আক্রান্ত হন। কিন্তু ২০১৭ সালে তা জিভ থেকে ছড়িয়ে ‌যায় মাথা ও গলায়। কিন্তু গত এক বছর থেকেই ‌যমে মানুষে লড়াই চালিয়ে ‌যাচ্ছেন তিনি।  

কিন্তু শারীরিক অসুস্থতা থামিয়ে দিতে পারেনি মনের ইচ্ছাকে। এদিন বাবা কে সাক্ষী রেখে আংটি বদল হল মেয়ে দিউতিমা ও সুদীপ্ত-র। বাবার কাছে আশীর্বাদ নিলেন নবদম্পতি। তবে স্বামীর মতো হাল ছাড়তে নারাজ সন্দীপবাবুর স্ত্রী সুজাতাদেবী। তাই প্রথম দিন থেকেই স্বামীর সাথে সমানে লড়ে ‌যাচ্ছেন তিনিও।

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons