চিনের মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৪২৫এ

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : করোনা ভাইরাসের থাবায় চীন জর্জরিত তা বলাই বাহুল্য। এর প্রকোপ থামার কোনও লক্ষণই তো নেইই,উল্টে।সোমবার মৃতের সংখ্যাটা গিয়ে দাঁড়ায় ৩৬২-তে। মঙ্গলবার তা বেড়ে হয় ৪২৫-এ। আক্রান্ত ১৭ হাজারের বেশি মানুষ। চীন থেকে এখন প্রতিদিনই ছড়িয়ে পড়ছে কোনো না কোনো দেশে। এমন অবস্থায় আতঙ্কে চিনকে কোণঠাসা করে দিচ্ছে একের পর এক দেশ। বিমান বন্ধ করেছে একাধিক সংস্থাও। এরই মধ্যে ভাইরাস-মোকাবিলায় মার্কিন তৎপরতায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছে চিন। নির্দিষ্ট করে কিছু না বললেও বেজিং-এর ইঙ্গিত, আমেরিকার এই সতর্কতাকে অতিসক্রিয়তা হিসেবেই দেখছে তারা। যে উহান থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়েছে সেখানকার পরিস্থিতির এখনও পর্যন্ত কোনও উন্নতি হয়নি। উলটে একই রকম গুরুতর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে আশপাশের একাধিক শহরে। বেশ কিছু জায়গা নতুন করে ‘লকডাউন’ করা হয়েছে। একটা করে রাত কাটছে আর বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। সোমবার সার্সের পরিসংখ্যানকেও ছাপিয়ে যায়। সার্সে আকত্রান্ত হয়ে সাড়ে প্রাণ গিয়েছিল তিনশোর কাছাকাছি মানুষের। এই মৃত্যুমিছিল কবে থামবে সে বিষয়ে আশার আলো দেখাতে পারছেন না কেউ-ই।

দিল্লিতেও ছড়াচ্ছে করোনা আতঙ্ক। দক্ষিণের রাজ্য কেরালায় ইতোমধ্যে তিন জনের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। এর মধ্যে করোনার উপসর্গ নিয়ে সোমবার দিল্লির রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালে ভরতি হলেন আরও এক ব্যক্তি। ওই ব্যক্তি কিছুদিন আগে চিনের হুয়ান থেকে দেশে এসেছেন বলে জানা গিয়েছে। পরীক্ষার জন্য ইতোমধ্যেই তাঁর রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, কেরালায় পরপর তিন জনের শরীরে করোনাভাইরাস সংক্রমণের জেরে বিভিন্ন মহলে উদ্বেগ ক্রমশ বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে সোমবার রাতে করোনাভাইরাস সংক্রমণকে ‘রাজ্য বিপর্যয়’ হিসেবে ঘোষণা করল পিনারাই বিজয়ন সরকার। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে রাজ্য প্রশাসন এই পদক্ষেপ করেছে বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা একথা জানিয়েছেন।

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons