সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় স্বাধীনতা নেই ভারতে, বিস্ফোরক মার্কিন রিপোর্ট

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : ধর্মীয় স্বাধীনতা খর্ব করার অভিযোগে এবার ভারতকে কাঠগোড়ায় তুলল মার্কিন কমিশন। তবে শুধু ভারত নয়, ধর্মীয় স্বাধীনতা ভঙ্গকারী দেশগুলির মধ্যে রয়োছে চিন, পাকিস্তান সহ আরও ১৪ টি দেশের নাম। এদিন আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা বিষয়ক মার্কিন কমিশন একটি রিপোর্ট পেশ করে। যেখানে বলা হয়, ২০০৪ সাল থেকে এই প্রথমবার ধর্মীয় স্বাধীনতা সঙ্কটের মুখে রয়েছে ভারত। একইসাথে সিএএ বা নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ও অমিত শাহের প্রসঙ্গও তুলে ধরা হয় সেই রিপোর্টে। যদিও মার্কিন কমিশনের এই রিপোর্ট কোন ভাবেই মানতে রাজি নয় ভারত। 

মার্কিন কমিশনের রিপোর্ট অনুসারে, বিজেপি দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই সারা দেশ জুড়ে ধর্মীয় স্বাধীনতা খর্ব হচ্ছে। বিশেষ করে মুসলিমদের ধর্মীয় স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করছে সরকার। দেশে যে বারংবার ধর্মীয় স্বাধীনতা ব্যহত হচ্ছে সেপ্রসঙ্গে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মার্কিন কমিশনকে অমিত শাহের ও যোগী আদিত্যনাথের মন্তব্যকেও তুলে ধরতে শোনা যায়। যদিও এই অভিযোগ ভুল বলে দাবি করেছেন ভারতের বিদেশ মন্ত্রক।

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বিরোধীদের দেশের কীট বলে মন্তব্য করতে শোনা গিয়েছিল অমিত শাহকে। পিছিয়ে নেই যোগি আদিত্যনাথও। তিনিও সিএএ আইন বিরোধীদের বিরিয়ানির পরিবর্তে বুলেট খাওয়াবেন বলে সুর চড়িয়েছিলেন। একইসাথে সিএএ বিরোধীদের ওপর দিল্লি পুলিশের আক্রণাত্মক আচরণ, এই সবকিছুই তুলে ধরা হয়য়েছে রিপোর্টে। যদিও সেই সব তথ্য ভারত মেনে নেয়নি বলেই জানিয়েছেন ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব। তবে এবিষয়ে কমিশনার তেনজিং দোরজি বলেন, ভারত বিশ্বের সবচেয়ে বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ। তাই এই দেশের নাম কখনোই চিন বা উত্তর কোরিয়ার সাথে একই তালিকায় রাখা উচিত নয়। 

 

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons