করোনার চিকিৎসায় এবার প্লাজমাথেরাপির পথে যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : এবার করোনা চিকিৎসায় প্লাজমাথেরাপি প্রয়োগ করার মতো বড় পদক্ষেপ করতে চলেছে রাজ্য সরকার। গত মার্চে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা এক মহিলার শরীর থেকে রাজ্যের এক হাসপাতালে সংগ্রহ করা হয়েছে রক্ত। রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের এক বর্ষীয়ান কর্মী একথা জানিয়েছেন বৃহস্পতিবার। এই চিকিৎসা পদ্ধতিতে কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা কোনও ব্যক্তির দেহের প্লাজমা থেকে অ্যান্টিবডি গ্রহণ করে তা কোনও করোনা রোগীর শরীরে প্রবেশ করানো হয়। এতে সেই সংক্রমিত ব্যক্তির শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়। কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ‘ডিপার্টমেন্ট অফ ইমিউনোমেহামোটলজি অ্যান্ড ব্লাড ট্রান্সফিউশন’-এ ওই রক্ত জমা ও সংরক্ষণ করা হয়েছে।

২৩ বছরের ওই তরুণী হাবড়ার বাসিন্দা। মার্চে তিনি সুস্থ হয়ে ওঠেন।

সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে সরকারি সূত্রে জানানো হয়েছে, ‘‘দেশের পূর্বাঞ্চলে প্রথমবারের জন্য প্লাজমা সংগ্রহ ও সংরক্ষণের কাজ করা হয়েছে।”

ওই মহিলা স্কটল্যান্ডে উচ্চশিক্ষার জন্য গিয়েছিলেন। সেখানে তাঁর শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। তিনি সুস্থ হয়ে গিয়েছেন। তিনি রাজি হয়েছেন তাঁর প্লাজমা দান করার ব্যাপারে।

বুধবার প্লাজমা দান করেন তিনি। তার আগে তাঁকে চকোলেট, ফলের রস ও মিল্কশেক দেওয়া হয়। তাঁর শরীরের ওজন, রক্তচাপ ও দেহের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হয় প্লাজমা সংগ্রহের আগে।

পুরো প্রক্রিয়া ছিল প্রায় ৫০ মিনিটের। তাঁর থেকে ৪১০ মিল‌িলিটার প্লাজমা সংগ্রহ করা হয়েছে। 
করোনা রোগীদের সাহায্যার্থে প্লাজমা দান করতে পেরে তিনি খুশি বলে জানিয়েছেন ওই মহিলা। তিনি জানাচ্ছেন, ‘‘মানবতার জন্য কিছু করতে পারাটা সব সময়ই গর্বের। আমি মানুষকে সাহায্য করতে চাই।”

আগামী সোমবার টাটা মেডিক্যাল সেন্টারে এক ২৮ বছর বয়সি চিকিৎসক যিনি সম্প্রতি করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন তিনিও প্লাজমা দান করবেন বলে স্বাস্থ্ দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে।

দফতর সূত্রে আরও জানানো হয়েছে, ১০-১২টি প্লাজমার পাউচ সংগৃহীত হলেই প্লাজমা থেরাপি শুরু করা হবে।

 

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons