করোনাভাইরাস- কীকরবেন? কীকরবেননা

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : ১.এটা কী একেবারে নতুন একটা ভাইরাস?

না, করোনা ভাইরাসের বাকি ভাইবোনেরা বহু হাজার বছর ধরে এই পৃথিবীতেই থাকে। তাদের মধ্যে ছয়টি মানুষের শরীরে রোগ বাঁধায়, বাকিরা পশুপাখিদের শরীরে।

এই ভাইরাসটিকে একেবারে নতুন বলা যাবে না। এর জিনের বেশ কিছুটা বাদুড়ে সংক্রমিত একরকমের করোনা ভাইরাসের সাথে মেলে।

২. করোনা ভাইরাস ছড়ায় কী ভাবে?

৩. চিন থেকে একটা পার্সেল এসেছে আমার নামে? নেব নাকি নেব না?

নিয়ে নিন। করোনা ভাইরাসের বাঁচার জন্য যে পরিবেশ লাগে তা মানুষ বা পশুপাখির শরীর ছাড়া পাওয়া যাবে না। তাই এই ভাইরাস বাতাসের সংস্পর্শে এলে কয়েক কয়েক মিনিটের মধ্যেই মরে যায়। ভাল করে রান্না করা পশুপাখির মাংস আর ফ্রোজেন খাবারেও করোনা ভাইরাস থাকার সম্ভাবনা শূন্য।

৪. কী ভাবে তাহলে এই সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচব আমি?

ক. সাবান আর জল দিয়ে ভাল করে হাত ধোবেন।

খ. বাড়ির বাইরে থাকলে মাঝে মাঝে অ্যালকোহল বেসড হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করুন। প্রতি আধঘন্টায় বা একঘন্টায় করার দরকার নেই। কারোর সংস্পর্শে এলে বা কোথাও খেতে গেলে খাওয়ার আগে এবং পরে করুন। মুখে এটা লাগাবেন না। যে কোন অ্যালকোহল বেসড স্যানিটাইজার হলেই হবে। মেডিকেটেড বা ক্লোরহেক্সিডিন থাকা স্যানিটাইজার ব্যবহার করার কোন প্রয়োজন নেই।

ময়লা হাতে কিন্তু স্যানিটাইজার কাজ করে না। তখন হাত ধুতেই হবে।

গ. বারবার নিজের মুখে, ঠোঁটে,নাকে, চোখে হাত দেবেন না।

ঘ. যাদের হাঁচি বা কাশি হচ্ছে তাদের থেকে এক মিটার দূরত্ব রাখার চেষ্টা করুন।

ঙ. কেউ হাঁচলে বা কাশলে মুখের আর নাকের সামনে হাত দিয়ে করতে বলুন। আপনার নিজের ক্ষেত্রেও তাই করুন। চেষ্টা করুন টিস্যু পেপারে হাঁচতে বা কাশতে। তারপরেই টিশ্যুটাকে ফেলে দিন। তারপর নিজের হাত ধুয়ে নিন বা স্যানিটাইজার লাগান। এই অভ্যাসটা তৈরি করতে পারলে ভাইরাসের সংক্রমণ অনেকটাই আটকে দেওয়া যাবে।

চ. কাঁচা মাংসে হাত না দেওয়ার চেষ্টা করুন। এটা মুরগী আর পাঁঠা দুটোর ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। রান্নার আগে মাংসটাকে ধোয়ার সময় তো আপনাকে হাত দিতেই হবে। সেক্ষেত্রে মাংস ধোবেন গরম জলে বা খুব ঠান্ডা জলে। ধোয়ার পরে নিজের হাত ধুয়ে নিন সাবানে। কড়ায় মাংস দেওয়ার পরে আর ভয় নেই, ভাল করে রান্না করে নেবেন, দেখবেন হাড়ের কাছের অংশ যেন কাঁচা না থাকে । সতর্ক করুন।

ছ. কাঁচা দুধ খাবেন না। ডিমও ভাল করে সেদ্ধ করে খাবেন। পোচড এগ এড়িয়ে চলুন।

 

.৫.মাস্ক পরবেন না?

প্লিজ মাস্ক পরবেন না!!
কারণ গুলো হল-

 মাস্ক পরে আপনি করোনাভাইরাসকে আপনার শরীরে আটকাতে পারবেন না। তা সে যতই আধুনিক ভাল মাস্ক হোক না কেন। যে মাস্ক আটকায় তা আপনি পাবেন না বাজারে, ল্যাবরেটরিতে ব্যবহৃত হয় তা।

৬.তাহলে মাস্ক কাদের পরা উচিত?

যারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ,অথবা নিজেদেরকে আক্রান্ত বলে মনে করছেন তারা পরবেন মাস্ক। যাতে অন্য কারোর শরীরে এই রোগ না ছড়ায়।

৭. হোমিওপ্যাথি কোন ওষুধ খেলে কী করোনা হওয়া থেকে আটকানো যাবে?

না যাবে না।

৮. ভিটামিন সি খেলে শুনছি করোনার হাত থেকে বাঁচোয়া, এটা কী সত্যি?

না সত্যি না, ভিটামিন সি আমাদের শরিরের ইমিউনিটি বাড়ায়, ঘা শুকোতে সাহায্য করে। কিন্তু আমরা সাধারণত সারাদিনে যেমন খাবার খাই তাতে যথেষ্ট ভিটামিন সি থাকেই। যদি মনে হয় নেই তাহলে বড় জোর আধখানা লেবু বা একটু আমলকী খান। এর বেশি খেতে গেলে কিছুই হবে না। শরীর ইউরিন দিয়ে বার করে দেবে।

ভিটামিন সি করোনার হাত থেকে আলাদা করে বাঁচাবে না আপনাকে।

৯.যদি করোনা হয়েই যায় তাহলে কী এর কোন ওষুধ আছে? বা আটকানোর জন্য ভ্যাকসিন?

না, এখনও পর্যন্ত কোন ওষুধ নেই। তবে আপনি যদি সুস্থ শরীরে এই ভাইরাস নেন তাহলে নিজে থেকেই কয়েকদিনের মধ্যেই ভাল হয়ে উঠবেন। আর অসুস্থ শরীর থাকলে ডাক্তারের কাছে যান। ডাক্তারবাবু প্রয়োজন মতো ব্যবস্থা নেবেন। তাহলেই আপনার মারা যাওয়ার সম্ভাবনা বেশ কমে যাবে।

করোনা আটকানোর জন্য কোন ভ্যাকসিন নেই এখনও অবধি।

 

Inform others ?
Share On Youtube
Show Buttons
Share On Youtube
Hide Buttons
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
Facebook
YouTube