অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে বেতন কাটা যাবেনা- মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নিউজটাইম ওয়েবডেস্ক : লকডাউনের সময়কালে কাজে কোনো কারণে কর্মচারী অনুপস্থিতি থাকলে সেই সুযোগ নিয়ে কোনও শ্রমিকের মজুরি কাটা যাবে না। জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সংগঠিত ও অ-সংগঠিত ক্ষেত্রের আওতায় আছে যে সমম্ত সংস্থা, তার উদ্দেশ্যে এই নির্দেশ জারি করল রাজ্য সরকার। একটি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সব সংস্থা, দোকান ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানকে লকডাউনের সময়কালে শ্রমিক-কর্মচারীদের মজুরি না কেটে বেতন দিতে হবে। এছাড়াও, সম্ভব হলে পরিযায়ী শ্রমিকদের থেকে ঘর ভাড় না নেওয়ার জন্যও বাড়িওয়ালের আর্জি জানিয়েছে রাজ্য সরকার। সঙ্গে আর ও বলা হয়েছে যে, জোর করে পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘর ছাড়তে বাধ্য করা হলে বাড়িওয়ালেদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

লকডাইনে চরম সমস্যায় বহিরাগত শ্রমিকরা। দিন আনা দিন খাওয়া এইসকল মানুষ কাজে না যাওয়ায়, এই সময়কালে মজুরি জুটবে কিনা তা জানা নেই শ্রমিকদের। এই পরিস্থিতিতে নবান্নের এই নির্দেশ শ্রমিকদের কাছে স্বস্তির বার্তা।

 

নির্দেশিকার বলা হয়েছে, ‘পরিযায়ী সহ যেসহ শ্রমিকরা ভাড়র ঘরে থাকেন- সম্ভব হলে বাড়িওয়ালা এই সব শ্রমিকদের এ মাসের ভাড় মুকুব করে দিন। তবে, শ্রমিক বা পড়ুয়াদের জোর করে ঘর ছাড়তে বাধ্য করা হলে নির্দিষ্ট আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন।’ রবিবার মুখ্যসচিব রাজীভা সিনহার তরফে এই নির্দেশ জারি করা হয়েছে। নবান্ন জানিয়েছে, ‘পরিযায়ী শ্রমিক সহ যাদের প্রয়োজন তাদের জন্য জেলা প্রশাসনগুলো অস্থায়ী আশ্রয় ও খাবারের ব্যবস্থা করেছে ও করছে।’

এই কাজে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, নাগরিক সমাজ ও স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তারও আবেদন জানানো হয়েছে।

অনেকের অভিযোগ, বিভিন্ন রাজ্য থেকে বাংলায় চলে আসছেন মানুষ। কিন্তু রাজ্যের কাছে এর কোনও তথ্য নেই। যা নিয়ে শনিবারই অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। রবিবার বিজ্ঞপ্তিতে নবান্ন জানায়, কোনও রাজ্য থেকে কোয়ারেন্টাইন ভেঙে কেউ এ রাজ্যে চলে এলে তা যেন বাংলা প্রশাসনকে খুব শীঘ্রই জানানো হয়। তাহলে প্রশাসনের তরফ থেকে তাকে কোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করতে পারবে। বাইরে থেকে এসে কেউ যদি তা গোপন করে রাখে তাহলে বলপূর্বক কোয়ান্টাই সেন্টারে থাকবে বাধ্য করবে প্রশাসন।

Inform others ?
Show Buttons
Hide Buttons